আপনার মোবাইলে থাকা জরুরী তথ্য চুরি হয়ে যাচ্ছে না তো?


অ্যান্ড্রয়েড ফোনে স্পাই অ্যাপ, স্পাই অ্যাপ দিয়ে তথ্য চুরি, স্পাই অ্যাপ দিয়ে আইডি হ্যাক, স্পাই অ্যাপ আপনার ফোনেও নেই তো, স্পাইওয়্যার থেকে বাঁচার উপায়,

গত কয়েক বছরে স্মার্টফোনগুলো ব্যক্তিগত তথ্য সংরক্ষণের জন্য সেরা মাধ্যম হয়ে উঠেছে।
আমরা নিজেদের মোবাইলটি প্রতিদিন বিভিন্ন কাজেই ব্যবহার করে থাকি। মেসেজ পাঠানো, ছবি বা ভিডিও পাঠানো, ইন্টারনেট ব্রাউজ করা কিংবা সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যস্ত থাকা এবং আরো অনেক কিছু। স্মার্টফোন ব্যবহার করে করা এই কাজের তালিকা এত সহজে গুনে শেষ করা যাবে না।

আচ্ছা, কেমন হবে যদি কেউ গোপনে আপনার মোবাইলের ব্যক্তিগত তথ্যের উপর নজর রাখে? এটা অবশ্যই একটি বিরক্তিকর ব্যাপার এবং কেউ নিশ্চয়ই চাইবে না, তার তথ্য অন্য কেউ জানুক।

আপনার ফোনেও এমন স্পাই অ্যাপ নেই তো? যা দিয়ে কেউ আপনার জরুরী তথ্য চুরি করতে পারে? আজকের আর্টিকেলে আমি কিছু টিপস এবং ট্রিকস দেখাবো, যার সাহায্যে আপনি মোবাইলে থাকা গোপন স্পাই অ্যাপগুলো সহজেই খুঁজে পাবেন।

কিন্তু, আপনার ফোনে কেউ নজরদারী করবে কেনো?

➣ অনেকগুলো কারণেই এমন হয়ে থাকে। হতে পারে, আপনার মোবাইলে গুরুত্বপুর্ণ ব্যবসায়িক তথ্য আছে বা কেউ হয়তো আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট হ্যাক করতে চায়।

➣ আপনার কাছে হয়তো রাষ্ট্রীয়, বৈজ্ঞানিক বা মামলা মোকদ্দমা ইত্যাদি সংক্রান্ত গুরুত্বপুর্ণ তথ্য আছে। এর জন্যেও আপনি স্পাইং এর শিকার হতে পারেন।

➣ আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করার জন্যও কেউ এমন করতে পারে।

তো, আপনি কীভাবে বুঝবেন আপনার ফোনে কেউ নজর রাখছে কী না? আর আপনার কী করা উচিত? এখানে কয়েকটি উপায় আছে যার মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার ফোন মনিটরিং করা হচ্ছে।

 ডাটা ব্যবহার অস্বাভাবিক ভাবে বেড়ে যাওয়া
কম ব্যবহারের পরেও ফোনের Data Usage বেড়ে যাচ্ছে? তাহলে আপনার ফোনে Spy App থাকার সম্ভাবনা রয়েছে। বেশিরভাগ স্পাই অ্যাপগুলো চুরি করা তথ্য হ্যাকারের কাছে পাঠানোর জন্য ভালো পরিমাণ ডাটা খরচ করে।

 হঠাৎ করে মোবাইল রিবুট হওয়া
কোনো কারণ ছাড়াই মোবাইল রিবুট হয়ে যাচ্ছে? এক্ষেত্রে, হতে পারে আপনার ফোনের অ্যাক্সেস অন্য কারো কাছেও আছে।

 অযাচিত টেক্সট মেসেজ
মোবাইলে কী বিভিন্ন কোড, সিম্বল, অক্ষরের মেসেজ আসছে? স্পায়িং সফটওয়্যারগুলো এর বিভিন্ন ফিচারের সাথে কানেকশন করার জন্য অনেক কোড ব্যবহার করে। তাই, আপনার ফোনেও স্পাই সফটওয়্যার থাকতে পারে।

 ব্যাটারীর চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে যাওয়া / ব্যবহার না করলেও ফোন গরম হয়ে যাওয়া
স্পাই অ্যাপগুলো আপনার পুরো ফোনটি মনিটর করে এবং সেসব তথ্য অন্য ডিভাইসে পাঠাতে থাকে। তাই ফোনের ব্যাটারী দ্রুত শেষ হতে থাকে। এর মানে, আপনি মোবাইল ব্যবহার না করলেও ব্যাটারীর চার্জ কমতে থাকে এবং ফোন গরম হতে থাকে।

 ফোন Shut Down করতে বেশি সময় লাগে
যখন আপনি মোবাইল বন্ধ করতে চান, তখন এটি সব অ্যাপগুলোর কাজ বন্ধ করে দেয়। কিন্তু যদি কোনো স্পাই সফটওয়্যার ব্যাকগ্রাউন্ডে ডাটা আদানপ্রদান করতে থাকে তখন ফোন Shut Down করতে গেলে কিছুক্ষণ সময় লাগে।

যদি আপনি আপনার মোবাইলে উপরের সমস্যাগুলো দেখতে পান, তাহলে অবশ্যই নিচে দেওয়া সমাধানগুলো দেখুন।

কীভাবে স্পাই সফটওয়্যার খুঁজে বের করতে হয়?

সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু স্পাই সফটওয়্যার হলোঃ
‣ Spyera
‣ TheOneSpy
‣ FlexiSPY
‣ mSpy
 Highster Mobile
এই অ্যাপ্লিকেশনগুলো আপনার মোবাইলের ফোন কল, মেসেজ এবং অন্যান্য তথ্য রেকর্ড করতে পারে। কিন্তু অ্যাপগুলো হাইড করা থাকে বিধায় অ্যাপ লিস্টে এগুলো দেখা যায় না।

নিচে দুইটি সমাধান দেয়া হলো, যার মাধ্যমে আপনার মোবাইলে কোনো স্পাই অ্যাপ থাকলে সেটি সনাক্ত করতে পারবেন।

 সেটিংস
➦ অ্যান্ড্রয়েড ফোনের "Settings" এ যান।
➦ সেখানে " Apps " বা " Applications " অপশনে ক্লিক করুন।
➦ বেশিরভাগ মোবাইলে ডানপাশে উপরে ৩ টা ডট থাকবে। সেখানে ক্লিক করুন।
➦ মোবাইলের সব অ্যাপ্লিকেশন দেখার জন্য "Show System Apps " তে ক্লিক করুন।
➦ এই লিস্টে আপনার অপরিচিত কোনো অ্যাপ আছে কী না দেখুন। থাকলে রিমুভ করে দিন।

 ডাউনলোডস
➦ মোবাইলের "My Files " বা " File Manager" অ্যাপে ঢুকুন।
➦ "Downloads " এ ক্লিক করুন।
➦ ডাউনলোড ফাইলে কোনো অ্যাবনরমাল অ্যাপ দেখতে পেলে ডিলেট করে দিন।

অনেক সময় স্পাই অ্যাপগুলো শনাক্ত করা গেলেও সেগুলো মোবাইল থেকে ডিলেট করা যায় না। সেক্ষেত্রে মোবাইল রিসেট করলে ঠিক হয়ে যাবে।

কীভাবে স্পাই সফটওয়্যার থেকে বাঁচবেন?
বেশিরভাগ লোকই এসব ব্যাপারে তেমন একটা সচেতন নন। যদি আপনার ফোনে সংবেদনশীল তথ্য থাকে এবং কেউ স্পাই অ্যাপ ব্যবহার করে সেগুলো দেখতে চায় তাহলে সেটা চিন্তার বিষয়।

তথ্য চুরির হাত থেকে বাঁচতে হলেঃ
 কোনো অজানা নাম্বার বা ইমেইল থেকে আসা লিংকে কখনো ক্লিক করবেন না।
 কোনো অ্যাপ ডাউনলোড করার আগে যাচাই করে নেবেন।
 আপনার অবর্তমানে কেউ আপনার ফোন ব্যবহার করে কী না দেখতে হবে।
 মোবাইলে একটি ভালো অ্যান্টিস্পাইওয়্যার অ্যাপ ( যেমনঃ Norton , McAfee, Spybot ) ডাউনলোড করে রাখতে পারেন।

Post a Comment

0 Comments